বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:৪৪ পূর্বাহ্ন
বিশেষ ঘোষণা :
*নতুন সকাল ডটকম পড়ুন ও বিজ্ঞাপন দিন *নতুন সকাল ডটকম পড়ুন ও বিজ্ঞাপন দিন *নতুন সকাল ডটকম পড়ুন ও বিজ্ঞাপন দিন *নতুন সকাল ডটকম পড়ুন ও বিজ্ঞাপন দিন
সংবাদ শিরোনাম :
হিংসা বিদ্বেষ ভুলে নেতা-কর্মীদের আন্তরিকতা হয়ে কাজ করতে হবে-এমপি সালাম মূর্শেদী খুলনায় পহেলা বৈশাখ উদযাপন পহেলা বৈশাখ বাঙ্গালির সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ-ভূমিমন্ত্রী মোংলা-ঘোষিয়াখালী চ্যানেলের তীরভূমি দখলের মহোৎসব, নাব্যতা সঙ্কটের শংকা কপিলমুনিতে পহেলা বৈশাখ উপলক্ষ্যে র‍্যালী ও পান্তা আসর অনুষ্ঠিত বটিয়াঘাটায় পহেলা বৈশাখ উদযাপিত বটিয়াঘাটার তেতুলতলা এলাকায় আইন শৃংখলা পরিস্তিতির অবনতি : জনমনে ক্ষোভ পবিত্র ঈদ-উল-ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন জেলা আ’লীগ নেতা সরফুদ্দিন বিশ্বাস বাচ্চু তেরখাদা-রূপসা-দিঘলিয়াবাসীকে ঈদ-উল-ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন এমপি সালাম মূর্শেদী চাঁদ রাতে মুক্তি পাচ্ছে ভালোবাসার ময়না পাখি!

খুবিতে আন্তর্জাতিক সম্মেলন শেষে প্রকৃতি ও প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষায় ৭ দফা সুপারিশ

  • আপডেট : সোমবার, ৪ মার্চ, ২০২৪, ৭.৫৪ পিএম
খুবিতে আন্তর্জাতিক সম্মেলন শেষে প্রকৃতি ও প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষায় ৭ দফা সুপারিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক : খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স ডিসিপ্লিন আয়োজিত পরিবেশের ওপর ‘টাইম ফর ন্যাচার এন্ড ন্যাচারাল রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট’ শীর্ষক দু’দিনব্যাপী দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক সম্মেলন থেকে প্রকৃতি ও প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষায় ৭ দফা সুপারিশ করা হয়েছে।

এর মধ্যে জলবায়ু পরিবর্তন এবং জীববৈচিত্র্যের ক্ষতির ওপর সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি ইকোসিস্টেম পরিষেবা, সামাজিক সুবিধা এবং জৈবিক সম্পদ সংরক্ষণের ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স ডিসিপ্লিন প্রধান ও সম্মেলন আয়োজক কমিটির অর্গানাইজিং সেক্রেটারি প্রফেসর ড. আবদুল্লাহ হারুন চৌধুরী এ সুপারিশগুলো তুলে ধরেন।

সুপারিশ সমূহ হলো, প্রকৃতি এবং প্রাকৃতিক সম্পদ ব্যবস্থাপনার সুবিধাগুলো তিনটি বিস্তৃত বিভাগে বিভক্ত করা যেতে পারে: ইকোসিস্টেম পরিষেবা (পানি সম্পদ সংরক্ষণ, মৃত্তিকা সংরক্ষণ, পুষ্টির সঞ্চয় এবং সাইকেল চালানো, বাস্তুতন্ত্রের রক্ষণাবেক্ষণ, দূষণ ভাঙ্গন এবং শোষণ, জলবায়ু স্থিতিশীলতায় অবদান এবং অপ্রত্যাশিত ঘটনা থেকে পুনরুদ্ধার), জৈবিক সম্পদ (খাদ্য, ওষুধ, বনজ পণ্য, প্রজনন স্টক, জনসংখ্যার জলাধার, এবং ভবিষ্যতের সম্পদ) এবং সামাজিক সুবিধা (গবেষণা এবং শিক্ষা, বিনোদন, সাংস্কৃতিক এবং ধর্মীয়/দার্শনিক মূল্যবোধ)।

প্রকৃতি এবং প্রাকৃতিক সম্পদের উপর হুমকি প্রশমিত করতে- কিছু প্রাকৃতিক বন, জলাভূমি, পাহাড় ইত্যাদি জীববৈচিত্র্যের আবাসস্থল হিসেবে শ্রেণীবদ্ধ করা প্রয়োজন; শ্রেণীবদ্ধ এলাকায় সব ধরনের কার্যকলাপ নিষিদ্ধ করা উচিত; প্রকৃতি থেকে অপরিকল্পিত সম্পদ সংগ্রহ আরও বাড়ানো উচিত নয়; সব ধরনের দূষণ কমাতে হবে; নেটিভ ইকোসিস্টেমকে অবশ্যই এলিয়েন ইনভেসিভ প্রজাতি থেকে রক্ষা করতে হবে।

বিদ্যমান প্রকৃতি ও প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষার জন্য প্রতিটি দেশকে অবশ্যই বাস্তবায়ন করতে হবে- জৈবিক বৈচিত্র্যের উপর কনভেনশন, কনভেনশন অন ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড অন এন্ডাঞ্জারড স্পিসিজ অফ ওয়াইল্ড ফানা এন্ড ফ্লোরা, কনভেনশন অব ওয়ার্ল্ড কালচারাল অ্যান্ড ন্যাচারাল হেরিটেজ, বন্যপ্রাণীর পরিযায়ী প্রজাতির সংরক্ষণের কনভেনশন, রামসার কনভেনশন, জাতীয় সংরক্ষণ কৌশল, জাতীয় পরিবেশ সুরক্ষা আইন, জাতীয় জীববৈচিত্র্য কৌশল কর্মপরিকল্পনা। পরিবেশগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ এলাকার কাছাকাছি কোনো উন্নয়ন প্রকল্প চালু করার আগে যথাযথ পরিবেশগত প্রভাব মূল্যায়ন এবং পরিবেশ ব্যবস্থাপনা পরিকল্পনা অবশ্যই করতে হবে। প্রকৃতি ও প্রাকৃতিক সম্পদের গুরুত্ব এবং এর আবাসস্থল সম্পর্কে মানুষের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি করা প্রয়োজন।

অংশগ্রহণমূলক সম্প্রদায় ব্যবস্থাপনা প্রকৃতি এবং প্রাকৃতিক সম্পদ ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয়। প্রকৃতি ও প্রাকৃতিক সম্পদের টেকসই সংরক্ষণ ও ব্যবস্থাপনার প্রক্রিয়া খুঁজে বের করার জন্য বিভিন্ন দেশের মধ্যে সমন্বিত গবেষণা প্রয়োজন।

 

খুলনায় ই-সাইন এর ব্যবহার বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

https://natunshokal.com/#
নিবন্ধনের জন্য আবেদনকৃত অনলাইন নিউজ পোর্টাল। অনুমতি ছাড়া এই পোর্টালের কোন সংবাদ কপি করে অন্য কোথাও প্রকাশ করা থেকে বিরত থাকুন।