বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১:৪৪ পূর্বাহ্ন
বিশেষ ঘোষণা :
ডিসেম্বর বিজয়ের-গৌরবের
সংবাদ শিরোনাম :

নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় আহত নেতা-কর্মিদের দেখতে গেলেন উপমন্ত্রী

  • আপডেট : মঙ্গলবার, ৯ জানুয়ারী, ২০২৪, ১১.১১ পিএম
নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় আহত নেতা-কর্মিদের দেখতে গেলেন উপমন্ত্রী

মোংলা প্রতিনিধি : জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পরে ব্যাপক হামলা, মারধর, ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে মোংলা-রামপাল এলাকার বিভিন্ন গ্রামাঞ্চলে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এতে উভয় পক্ষের প্রায় ২০/২৫ জন কর্মী সমর্থক কম বেশী আহত হয়েছে। কেউ হাসপাতালে বেডে কাতরাচ্ছে আবার কেউ ভয়ে হাসপাতালে আসতে না পেরে চিকিৎসা নিচ্ছেন নিজ ঘরেই। নৌকার বিপক্ষে নির্বাচন করায় এলাকা ছেড়েছে অনেকই। তবে দলমত নির্ভিশেষে সকল আহত নেতা কর্মিদের দেখতে হাসপাতালে ছুটে যান চতুর্থবারের মতো নির্বাচত সংসদ সদস্য উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার।

মঙ্গলবার (৯ জানুয়ারী) সকাল থেকেই বিভিন্ন এলাকায় ঘড়ে দেখেন ও নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় আহত নেতাকর্মীদের দেখতে ও খোঁজ নিতে হাসপাতালে ছুটে যান পরিবেশ বন ও জলবায়ু পরিবত’ন মন্ত্রনালয়ের উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার। এসময় আহত নেতা কর্মিরা তাকে কাছে পেয়ে আবেগ আফ্লুত হয়ে পড়েন এবং কষ্টের কথাগুলো তুলে দরেন তারা।

পরে সকলকে শান্তনা দেন এবং এলাকায় নির্বাচন সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে নিজেদের মধ্যে সহিংসতা না করার জন্য নিদের্শনা দেন উপমন্ত্রী। এসময় তিনি বলেন, নির্বাচনে হারজীত তাকবে, তাই রাত শেষে দিন আসলেই সকলে একই এলাকায় বসবাস করতে হবে। এ নিয়ে সহিংসতা, হানাহানী, মারধর, একে অপরের প্রতি হিংসাত্ত্বক মনোভাব না রাখার পরামর্শ উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহারের।

গত ৭ জানুয়ারী বাগেরহাট-৩ (মোংলা-রামপাল) আসন থেকে দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে চতুর্থবারের মতো নৌকা প্রতীক নিয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন বেগম হাবিবুন নাহার। তার সাথে প্রতিদ্বন্ধীতা করছিলেন জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি স্বতন্ত্র প্রার্থী ইদ্রিস আলী ইজারদারের। নিরর্বাচনের পরে তাদের উভয়ের অনুসারীর কয়েক দফার হামলায় ২০/২৫ জন আহত হয়। ভাংচুরও করা হয়েছে এলাকার বেশ কিছু ঘরবাড়ী ও আসবাব পত্র সহ অনেক মালামাল। এর মধ্যে তাদের কয়েকজনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

এসময় উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহারের সাথে উপস্থিত ছিলেন, মোংলা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবু তাহের হাওলাদার, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুনিল কুমার বিশ্বাস, সাধারণ সম্পাদক মোঃ ইব্রাহিম হোসেন, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ শাহীন, পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান জসিম, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ই¯্রাফিল হাওলাদার, ইউপি সদস্য খান আহাদুজ্জামান, মাইনুল হোসেন মিন্টু, ইউছিুপ খান ও মোঃ সালাম সহ অসংখ্য নেতা কর্মিরা।

মোংলা সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার মুশফিকুর রহমান তুষার বলেন, জাতীয় সংসদ নর্বিাচন পরবর্তী কিছু সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। এনিয়ে পুলিশ গুরুত্বের সাথে কাজ করছে, অভিযোগও আসছে থানায়। তদন্ত চলছে, দোশীদের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নেয়ার আশ্বাস পুলিশের এ কর্মকর্তার।

 

খুলনার ছয়টি আসনে জামানত হারাচ্ছেন ৩০ প্রার্থী

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

One response to “নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় আহত নেতা-কর্মিদের দেখতে গেলেন উপমন্ত্রী”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

https://natunshokal.com/#
নিবন্ধনের জন্য আবেদনকৃত অনলাইন নিউজ পোর্টাল। অনুমতি ছাড়া এই পোর্টালের কোন সংবাদ কপি করে অন্য কোথাও প্রকাশ করা থেকে বিরত থাকুন।