বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৫:৩১ পূর্বাহ্ন
বিশেষ ঘোষণা :
ডিসেম্বর বিজয়ের-গৌরবের
সংবাদ শিরোনাম :

পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীকে সমাজের মূল ধারায় সম্পৃক্ত হবে

  • আপডেট : বুধবার, ২৭ ডিসেম্বর, ২০২৩, ৬.২০ পিএম
পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীকে সমাজের মূল ধারায় সম্পৃক্ত হবে

বিজ্ঞপ্তি : পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীকে সমান মর্যাদা দেওয়ার মানসিকতা গড়ে তুলতে হবে। পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীকে সমাজের মূল ধারায় সম্পৃক্ত হবে। বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যার প্রায় ১১% পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী। এই জনগোষ্ঠীর একটি উল্লেখযোগ্য অংশ হলো দলিত. ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী, হিজড়া ও ট্রান্সজেন্ডার জনগোষ্ঠী এবং প্রতিবন্ধী ব্যক্তি।

বুধবার ( ২৭ ডিসেম্বর) দুপুরে খুলনা বিভাগীয় পর্যায়ে যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর খুলনার সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর সরকারি পরিষেবায় অর্ন্তূক্তি বৃদ্ধির লক্ষ্যে সরকারি পরিষেবা প্রতিষ্ঠানের সাথে মতবিনিময় সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন।

মর্যাদাপূর্ণ পেশায় পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর অন্তর্ভূক্তি নিশ্চিত করা এবং সরকারী পরিষেবা প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে পর্যাপ্ত প্রাপ্তি নিশ্চিত করার লক্ষ্যে নাগরিক উদ্যোগে এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর প্রতি বৈষম্যমূলক চর্চা লাঘব এবং তাদের সক্ষমতা বৃদ্ধির মাধ্যমে তাদের ক্ষমতায়ন এবং বাংলাদেশের উন্নয়নে প্রক্রিয়ায় তাদের সক্রিয় অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং ক্রিশ্চিয়ান এইড এর সহায়তায় নাগরিক উদ্যোগ, ব্লাস্ট, বন্ধু সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটি এবং ওয়েভ ফাউন্ডেশন ২০২১ সাল থেকে ‘পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর ক্ষমতায়ন ও বাংলাদেশের উন্নয়ন প্রক্রিয়ায় সক্রিয় অংশগ্রহণ’ শিরোনামে একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে।

অনুষ্ঠানে খুলনা জেলা পর্যায়ের সরকারি কর্মকর্তারা (জেলা সমাজসেবা কার্যালয়, যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর, মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর, মৎস অধিদপ্তর, স্বাস্থ্য বিষয়ক অধিদপ্তর), বিভাগীয় কাউকে বাদ দিয়ে নয় জোটের সদস্যবৃন্দ, পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর উন্নয়নে কর্মরত সিভিল সোসাইটি অর্গানাইজেশন এর সদস্যবৃন্দ, পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর উন্নয়নে কর্মরত চেইঞ্জ এজেন্ট অংশগ্রহণ করেন।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন খুলনা জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের উপ পরিচালক খান মোতাহার হোসেন, যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর খুলনার উপ পরিচালক মো: মোস্তাক উদ্দীন, মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উপ পরিচালক হাসনা হেনা, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ডাঃ এস এম কামাল হোসেন, মৎস অধিদপ্তরের সিনিয়র সহকারী পরিচালক বিশ্বজিৎ বৈরাগী, কাউকে বাদ দিয়ে নয় জোট সদস্য খুলনা প্রেসক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক মাহবুবুর রহমান মুন্নাসহ সম্মানীয় সরকারী কর্মকর্তারা।

এতে সভাপতিত্ব করেন কাউকে বাদ দিয়ে নয় জোটের সভাপতি নজরুল ইসলাম মল্লিক।

অনুষ্ঠানে আয়োজক সংস্থা নাগরিক উদ্যোগ এর পক্ষে স্বাগত বক্তব্য রাখেন প্রকল্পের বিভাগীয় সমন্বয়কারী মানিক রঞ্জন দাস।

অতিথিরা তাদের বক্তব্যে বলেন, পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর পরিষেবা প্রাপ্তির ক্ষেত্রে কার্যকর যোগাযোগ মাধ্যম একটি গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করতে পারে। তৃনমুল পর্যায়ের মতবিনিময় এর মাধ্যমে বিভাগীয় পর্যায়ের কর্মকর্তাদের নিকট পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর তথ্য এভাবে আলোচনার মাধ্যমে পরিষেবা প্রাপ্তির কাজটি অনেক সহজতর হবে বলে সভায় উঠে আসে।

এর মাধ্যমে পরিষেবা প্রতিষ্ঠানগুলো সরাসরি পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর বিভিন্ন পরিষেবা প্রাপ্তির সুযোগ সৃষ্টিতে সক্ষম হবে এবং বিভিন্ন পরিষেবা প্রদানের মাধ্যমে তাদের উন্নয়ন সহজতর করতে পারবে।

পরিষেবা প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের সামাজিক দায়বদ্ধতার জায়গা থেকে করণীয় সম্পর্কে সচেতন হবে এবং পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর সেবা প্রাপ্তিতে এগিয়ে আসবে।

 

রূপসায় সমবায়ী ও সুফলভোগীদের প্রশিক্ষণের দ্বিতীয় দিন অতিবাহিত

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

https://natunshokal.com/#
নিবন্ধনের জন্য আবেদনকৃত অনলাইন নিউজ পোর্টাল। অনুমতি ছাড়া এই পোর্টালের কোন সংবাদ কপি করে অন্য কোথাও প্রকাশ করা থেকে বিরত থাকুন।