বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:০০ পূর্বাহ্ন
বিশেষ ঘোষণা :
*নতুন সকাল ডটকম পড়ুন ও বিজ্ঞাপন দিন *নতুন সকাল ডটকম পড়ুন ও বিজ্ঞাপন দিন *নতুন সকাল ডটকম পড়ুন ও বিজ্ঞাপন দিন *নতুন সকাল ডটকম পড়ুন ও বিজ্ঞাপন দিন
সংবাদ শিরোনাম :
হিংসা বিদ্বেষ ভুলে নেতা-কর্মীদের আন্তরিকতা হয়ে কাজ করতে হবে-এমপি সালাম মূর্শেদী খুলনায় পহেলা বৈশাখ উদযাপন পহেলা বৈশাখ বাঙ্গালির সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ-ভূমিমন্ত্রী মোংলা-ঘোষিয়াখালী চ্যানেলের তীরভূমি দখলের মহোৎসব, নাব্যতা সঙ্কটের শংকা কপিলমুনিতে পহেলা বৈশাখ উপলক্ষ্যে র‍্যালী ও পান্তা আসর অনুষ্ঠিত বটিয়াঘাটায় পহেলা বৈশাখ উদযাপিত বটিয়াঘাটার তেতুলতলা এলাকায় আইন শৃংখলা পরিস্তিতির অবনতি : জনমনে ক্ষোভ পবিত্র ঈদ-উল-ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন জেলা আ’লীগ নেতা সরফুদ্দিন বিশ্বাস বাচ্চু তেরখাদা-রূপসা-দিঘলিয়াবাসীকে ঈদ-উল-ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন এমপি সালাম মূর্শেদী চাঁদ রাতে মুক্তি পাচ্ছে ভালোবাসার ময়না পাখি!

১ নভেম্বর উদ্বোধন হচ্ছে খুলনা-মোংলা রেলপথ

  • আপডেট : মঙ্গলবার, ৩১ অক্টোবর, ২০২৩, ৫.৪১ পিএম
১ নভেম্বর উদ্বোধন হচ্ছে খুলনা-মোংলা রেলপথ

নিজস্ব প্রতিবেদক : আজ ১ নভেম্বর (বুধবার) বহু প্রতিক্ষিত খুলনা-মোংলা রেলপথের উদ্বোধন অনুষ্ঠিত হবে। দুপুরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ভার্চুয়ালী যুক্ত হয়ে রেলপথের উদ্বোধন করবেন।

রেলপথটি চালু হলে মোংলা বন্দরের সক্ষমতা বহুগুণ বেড়ে যাবে। ইতোমধ্যে ৩০ অক্টোবর সোমবার বিকেলে ফুলতলা থেকে মোংলা পর্যন্ত একটি ট্রেন পরীক্ষামূলকভাবে চালানো হয়েছে।

মোংলা থেকে রেলপথটি এসে খুলনার ফুলতলার মূল রেলপথের সাথে মিলিত হওয়ায় বাংলাদেশের সঙ্গে ভারত, নেপাল ও ভুটানের যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নত হবে।

মোংলা বন্দর ব্যবহার করে কম খরচে পণ্য আমদানি ও রফতানি করার সুযোগ ঘটবে। এতে বাড়বে সরকারি রাজস্ব। নতুন নতুন কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে। পাশাপাশি বিকাশ ঘটবে পর্যটন শিল্পের।

৬৫ কিলোমিটারের এই রেলপথে স্টেশন রয়েছে ৮টি। এগুলো হলো ফুলতলা রেলওয়ে স্টেশন, আড়ংঘাটা রেলওয়ে স্টেশন, মোহম্মদনগর রেলওয়ে স্টেশন, কাটাখালী রেলওয়ে স্টেশন, চুলকাঠী রেলওয়ে স্টেশন, ভাগা রেলওয়ে স্টেশন, দিগরাজ রেলওয়ে স্টেশন ও মোংলা রেলওয়ে স্টেশন।

রূপসা নদীর উপর নির্মিত খানজাহান আলী সেতুর অদুরে রয়েছে ৫.১৩ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের রেলসেতু। যার নির্মাণ কাজ ছিলো অনেকটা চ্যালেঞ্জের। এছাড়া এই রেলপথে ১০৭টি ছোট ব্রিজ ও ৯টি আন্ডারপাস নির্মাণ করা হয়েছে।

২০১৬ সালে খুলনা-মোংলা রেলপথ প্রকল্পের কাজ শুরু হয়। ভারত সরকারের ঋণ সহায়তায় প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে ভারতীয় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান লার্সেন অ্যান্ড টার্বো ও ইরকন ইন্টারন্যাশনাল।

প্রথমে প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছিল ৩ হাজার ৮০১ কোটি ৬১ লাখ টাকা। ২০১৩ সালের ডিসেম্বরে প্রকল্পটি শেষ হওয়ার কথা ছিল। কয়েক ধাপে মেয়াদ বাড়িয়ে ২০২৪ সালের অক্টোবর পর্যন্ত করা হয়। সর্বশেষ প্রকল্পের ব্যয় দাঁড়ায় ৪ হাজার ২৬০ কোটি ৮৮ লাখ ৫৯ হাজার টাকা।

উল্লেখ্য, ট্রানজিট সুবিধার আওতায় মোংলা বন্দর থেকে পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত এবং নেপাল ও ভুটানের পণ্য পরিবহনে সাশ্রয় ও সহজকরণের লক্ষে খুলনা-মোংলা রেলপথ স্থাপনের সিদ্ধান্ত নেয় আওয়ামী লীগ সরকার।

এরই ধারাবাহিকতায় রেললাইন প্রকল্পটি ২০১০ সালের ২১ ডিসেম্বর জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় অনুমোদন পায়।

 

আরো পড়ুনকাজদিয়া বাজার বনিক সমিতির কোষাধ্যক্ষ আজাদ শেখের জানাজা সম্পন্ন

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

2 responses to “১ নভেম্বর উদ্বোধন হচ্ছে খুলনা-মোংলা রেলপথ”

  1. Wow, marvelous blog format! How lengthy have you ever been running a blog for?
    you make running a blog glance easy. The overall look of your website is magnificent, let alone the content!
    You can see similar here sklep online

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

https://natunshokal.com/#
নিবন্ধনের জন্য আবেদনকৃত অনলাইন নিউজ পোর্টাল। অনুমতি ছাড়া এই পোর্টালের কোন সংবাদ কপি করে অন্য কোথাও প্রকাশ করা থেকে বিরত থাকুন।