শনিবার, ১৫ মে ২০২১, ১২:৫৫ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
তেরখাদা সদর ইউনিয়নবাসীকে ঈদ-উল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সৌদি প্রবাসী আবুল হাসান রূপসা প্রেসক্লাবের সদস্যদের তরুণ সমাজ সেবক জুয়েলের ঈদ উপহার প্রদান তেরখাদা উপজেলাবাসী সহ সদর ইউনিয়নবাসীকে উপজেলা আ’লীগের সভাপতির ঈদ-উল-ফিতরের শুভেচ্ছা তেরখাদা উপজেলাবাসী সহ সদর ইউনিয়নবাসীকে উপজেলা আ’লীগের সাধারন সম্পাদকের ঈদ-উল-ফিতরের শুভেচ্ছা তেরখাদা সদর ইউনিয়নবাসীকে জেলা স্বেচ্চাসেবকলীগ নেতার ঈদ-উল ফিতরের শুভেচ্ছা খুলনা জেলাবাসীকে পবিত্র ঈদ-উল-ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন পুলিশ সুপার মাহবুব হাসান চিলমারীতে অটো রিক্সার চাপায় এক শিশুর মৃত্যু মংলা ও সুন্দরবনের জেলেপাড়ায় নৌবাহিনীর সপ্তাহব্যাপী ত্রাণ তৎপরতা ডুমুরিয়া ও ফুলতলায় নারায়ণ চন্দ্র চন্দ এমপি’র ঈদ উপহার বিতরণ রামপালে অসহায় ও দুস্থদের মাঝে উপ‌জেলা ছাত্রদলের ইফতার বিতরণ

বটিয়াঘাটায় আবাদি জমিতে স্থাপনা : ফসল ঘাটতির আশংকা

  • আপডেট : সোমবার, ৩ মে, ২০২১, ৯.০৬ পিএম
ফাইল ফটো

এনায়েত আলী বিশ্বাস, বটিয়াঘাটা : আবাদী জমিতে স্থাপনা গড়ে তোলায় ফসল ঘাটতির মুখে পড়েছে বটিয়াঘাটা উপজেলা। অনেক দিন ধরে খুলনা মহানগর সংলগ্ন বটিয়াঘাটার জলমা ইউনিয়নের হরিনটানা, মাথা ভাঙ্গা, লবনচরা, নিজখামার, কৈয়া মোহম্মাদনগর, রাঙ্গেমারী, গুপ্তমারী, জলাম, বটিয়াঘাটার হাটবাটি হেতালবুনিয়া, হোগলবুনিয়া, কিসমত ফুলতলা, ফুলতলা, গঙ্গারামপুর ইউনিয়নের বরণপাড়া, গাগড়ামারী, আমীরপুর ইউনিয়নের বাইনতলা, খড়িয়া, সাদাল, নারায়ণপুর, ভান্ডারকোর্ট ইউনিয়নের কুটিরহাট, ভান্ডারকোর্ট এলকায় এক শ্রেণীর ভূমি ব্যবসায়ী আমাদি জমি কিনে বালি ভরাট করে প্লটিং এর মাধ্যমে প্লট বিক্রি করছে। প্লট মালিকরা এসব জমি অন্যদের কাছে চড়া দামে বিক্রি করা অবাদে ভাবন শিল্প কারখানা গড়ে উঠছে। ফলে আবাদি জমির পরিমান কমে উপজেলায় ফসলের ঘাটতি দেখা দিয়েছে।

এ ব্যপারে উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ রবিউল ইসলামের সঙ্গে কথা বললে তিনি জানান ২০১৫ সালে এই উপজেলায় আবাদি জমির পরিমান ছিল ১৯ হাজার ৯শ ১৫ হেক্টর। সেখানে ২০১৫ সালে এই জমির পরিমান দাড়িয়েছে ১৯ হাজার ৮শ ১১ হেক্টরে। এই ক বছরে আবাদি জমির পরিমান কমেছে ১০৪ হেক্টর। ইতোমধ্যে এ সব জমি দখল করে হাজার হাজার ইমারত ও শিল্প কারখানা গড়ে উঠেছে। এর মধ্যে কোন কোন শিল্প কারখানা সরকারি অনুমোদন পেলেও অধিকাংশ শিল্প কারখানা অনুমোদন পায়নি। এ ব্যপারে উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মোঃ আব্দুল হাই সিদ্দিকি জানান, আবাদি জমিতে স্থাপনা না করার কথা রয়েছে। অথচ অনেকে তা উপেক্ষা করে স্থাপনা গড়ে তুলছে।

বিষয়টি খতিয়ে দেখতে এবং ফসল ঘাটতির কবল থেকে বটিয়াঘাটাকে রক্ষার জন্য ভূমি মন্ত্রীসহ খুলনা জেলা প্রশাসকের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছেন এলাকাবাসী।

নিউজটি শেয়ার করুন

নিচে আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ThemesBazar-Jowfhowo
# নতুন সকাল ডটকম, রূপসা-খুলনা থেকে প্রকাশিত একটি অনলাইন পত্রিকা। # এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া কপি রাইট বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।