শনিবার, ১৫ মে ২০২১, ০২:৩০ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
তেরখাদা সদর ইউনিয়নবাসীকে ঈদ-উল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সৌদি প্রবাসী আবুল হাসান রূপসা প্রেসক্লাবের সদস্যদের তরুণ সমাজ সেবক জুয়েলের ঈদ উপহার প্রদান তেরখাদা উপজেলাবাসী সহ সদর ইউনিয়নবাসীকে উপজেলা আ’লীগের সভাপতির ঈদ-উল-ফিতরের শুভেচ্ছা তেরখাদা উপজেলাবাসী সহ সদর ইউনিয়নবাসীকে উপজেলা আ’লীগের সাধারন সম্পাদকের ঈদ-উল-ফিতরের শুভেচ্ছা তেরখাদা সদর ইউনিয়নবাসীকে জেলা স্বেচ্চাসেবকলীগ নেতার ঈদ-উল ফিতরের শুভেচ্ছা খুলনা জেলাবাসীকে পবিত্র ঈদ-উল-ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন পুলিশ সুপার মাহবুব হাসান চিলমারীতে অটো রিক্সার চাপায় এক শিশুর মৃত্যু মংলা ও সুন্দরবনের জেলেপাড়ায় নৌবাহিনীর সপ্তাহব্যাপী ত্রাণ তৎপরতা ডুমুরিয়া ও ফুলতলায় নারায়ণ চন্দ্র চন্দ এমপি’র ঈদ উপহার বিতরণ রামপালে অসহায় ও দুস্থদের মাঝে উপ‌জেলা ছাত্রদলের ইফতার বিতরণ

মায়ের জানাযা পড়তে ঢাকা থেকে রওনা দিয়ে স্বপরিবারে লাশ হয়ে ফিরলেন তেরখাদার মনির

  • আপডেট : সোমবার, ৩ মে, ২০২১, ৮.১০ পিএম
মায়ের জানাযা পড়তে ঢাকা থেকে রওনা দিয়ে স্বপরিবারে লাশ হয়ে ফিরলেন তেরখাদার মনির

রাসেল আহমেদ : সোমবার সকাল ১০টায় মায়ের জানাজা। সেহেরী শেষে রাজধানী ঢাকার মিরপুর-১১ মসজিদ মার্কেটের কাপড়ের দোকানদার মনির শিকদার মমতাময়ী মাকে শেষবারের মতো দেখতে তিন কণ্যা ও স্ত্রীকে নিয়ে রওনা হন তেরখাদা সদর ইউনিয়নের পারোখালী গ্রামের উদ্দেশ্যে।

কিন্তু মাকে শেষবারের মতো আর দেখা হল না। নিজেই স্বপরিবারে চলে গেলেন মায়ের সাথেই।

পদ্মা নদীর বালু ভর্তি বাল্কহেডের সাথে যাত্রীবাহী স্পিডবোটের সংঘর্ষে স্ত্রী হেনা বেগম, কণ্যা সুমি খাতুন (৭), রুমি খাতুন (৪) ও মনির শিকদারসহ ২৬ জন নিহত হন। প্রাণে বেঁচে আছে শুধু তাদের ৯ বছর বয়সী মেয়ে মীম খাতুন। পিতা-মাতা ও ছোট দুই বোন হারিয়ে বাকরুদ্ধ মীম; শুধু ফ্যালফ্যাল করে তাকাচ্ছে। তার বোকা কান্নায় ভারি হয়ে উঠেছে আকাশ-বাতাস।” সরেজমিনে তেরখাদার পারোখালীতে গিয়ে দেখা যায় শোকের মাতম।

নিহত মনির শিকদারের ভাই মোঃ কামরুজ্জামান অশ্রুসিক্ত কণ্ঠে এ প্রতিবেদককে বলেন, গত রবিবার রাতে মা লাইলী বেগম (৯০) বার্ধক্যজনিত কারণে ইন্তেকাল করেন। মায়ের অসুস্থতার খবর শুনে শুক্রবার নারায়নগঞ্জ থেকে ওয়াল্টনের শো’রুম বন্ধ করে দিয়ে বাড়ী ফেরেন মোঃ কামরুজ্জামান।
আর সোমবার দিবাগত রাতে সেহেরী সেরে ঢাকার মিরপুর থেকে বাড়ীর উদ্দেশ্যে তিন মেয়ে ও স্ত্রীকে নিয়ে ফিরছিলেন মনির শিকদার। পদ্মা নদীর শিবচর

এলাকায় পৌঁছে মনির শিকদারের সাথে দেখা হয়েছিল তার ভাইপো মিরাজ শিকদারের। সেখানেই শেষ কথা হয়েছিল তাদের। মিরাজ তার নানীকে নিয়ে আগের স্পীডবোটে পদ্মা পেরিয়ে তেরখাদায় এসেছিল। পরে তিনি জানতে পারেন মাদারীপুরের শিবচর উপজেলায় পদ্মা নদীতে একটি বালু ভর্তি বাল্কহেডের সাথে যাত্রীবাহী স্পিডবোটের সংঘর্ষে ২৬ জন নিহত হয়েছেন।

নিহতদের মধ্যে তার চাচাসহ সহ স্বপরিবার রয়েছে। শুধু বেচে আছে পরিবারের একমাত্র সদস্য মীম (৯)। রাজধানী ঢাকার মিরপুর-১১ মসজিদ মার্কেটে কাপড়ের দোকানদার মনির শিকদার পরিবার ছিল স্বচ্ছল ও সুখী পরিবার।

নিহতের ভাই মোঃ কামরুজ্জামান বলেন, ‘নিহতদের মরদেহ পারিবারিক কবরস্থান আমার মায়ের পাশে সারিবদ্ধ ভাবে দাফন করবো বলে কবর তৈরি করেছি।’ কথা শেষ না করেই হাউমাউ করে কেঁদে ফেললেন তিনি।

তেরখাদা উপজেলা আ’লীগের সভাপতি ও সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এফএম অহিদুজ্জামান বলেন, মাদারীপুরের শিবচরের ঘটনাস্থলে কথা বলেছি, তেরখাদা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করে মরদেহ সরকারি তত্তাবধায়নে আনার ব্যবস্থা করেছি।

মায়ের লাশ দেখতে এসে লাশ হয়ে গেল পুরো পরিবারটি। সত্যি বড় হৃদয় বিদারক। এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। চেষ্টা করবো পরিবারটির পাশে থাকার।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

নিচে আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ThemesBazar-Jowfhowo
# নতুন সকাল ডটকম, রূপসা-খুলনা থেকে প্রকাশিত একটি অনলাইন পত্রিকা। # এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া কপি রাইট বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।