রবিবার, ০১ অগাস্ট ২০২১, ০৩:০৬ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
কেশবপুরে ২২’শ শ্রমিকের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর মানবিক সহায়তা বিতরণ রামপালে তরুণী নিখোঁজ থানায় সাধারণ ডায়েরি পাইকগাছায় বর্ধিত আকারে বিএনপির অক্সিজেন ব্যাংকের উদ্বোধন কৃষিপন্য রপ্তানিতে রাষ্ট্রীয় পদক পাচ্ছেন তেরখাদার মাহমুদ পাইকগাছার ৫ শতাধিক গণপরিবহন শ্রমিক পেল প্রধানমন্ত্রীর মানবিক সহায়তা সাবেক ডেপুটি স্পিকার অধ্যাপক আলী আশরাফ’র মৃত্যুতে সালাম মূর্শেদী এমপির শোক কাউখালীতে যৌতুক লোভী স্বামীর নির্যাতনে গৃহবধু ঘরছাড়া কাউখালীতে রাস্তা আটকিয়ে গোয়লঘর নির্মাণ : জনদূর্ভোগ চরমে শার্শায় এক সন্তানের জননীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ চাকরী বাচাঁতে রমনা ঘাটে ঢাকা যাত্রীর জনস্রোত

চিলমারীতে ব্রহ্মপুত্র নদের তীর রক্ষার ব্লক দিয়ে ঘরের মেঝে নির্মাণ

  • আপডেট : সোমবার, ১৯ জুলাই, ২০২১, ৮.১৬ পিএম
চিলমারীতে ব্রহ্মপুত্র নদের তীর রক্ষার ব্লক দিয়ে ঘরের মেঝে নির্মাণ

ফয়সাল হক, চিলমারী (কুড়িগ্রাম) : কুড়িগ্রামের চিলমারীতে ব্রহ্মপুত্র নদের ডানতীর রক্ষা প্রকল্পের কাজের জন্য তৈরীকৃত ব্লক দিয়ে স্থানীয়দের ঘরের মেঝে প্লাষ্টারসহ বিভিন্ন স্থাপনা নির্মানের অভিযোগ উঠেছে। ব্লকগুলি হরিলুট হয়ে গেলেও কর্তৃপক্ষের কোন তদারকি নেই।এতে সদ্য শেষ হয়ে যাওয়া প্রকল্পের জরুরী মেরামতের ব্যবস্থা না থাকায় প্রকল্পের উদ্দেশ্য ভেস্তে যেতে পারে বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ।
জানা গেছে,কড়ালগ্রাসী ব্রহ্মপুত্র নদের হাত থেকে চিলমারীকে রক্ষার জন্য ব্রহ্মপুত্র নদের ডানতীর রক্ষা প্রকল্পের কাজ ৩য় ধাপে বরাদ্দের মাধ্যমে চলমান রয়েছে। উপজেলার রমনা ইউনিয়নের জোড়গাছ এলাকায় ব্রহ্মপুত্র নদের ডানতীর বরাবর কি.মি. ৬৭০৪০ হতে কি.মি.৬৭৪৬০ পর্যন্ত ৬০০ মিটার নদী তীর সংরক্ষনের কুড়ি/এডিপি/চিলমারী /পি-০৩/০২ প্যাকেজের কাজ পায় চটÍগ্রামের মোহাম্মদ ইউনুছ এন্ড ব্রাদার্স প্রা.লি. নামক ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। যার চুক্তিমূল্য প্রায় ৩৫কোটি টাকা। কাজ শুরুর তারিখ ১৩.১১. ২০১৯ এবং কাজ সমাপ্তির তারিখ ৩১.০৫.২০২১। চুক্তি মোতাবেক কাজ শেষ হয়েছে গত ৩১ মে তারিখে। নিয়মানুযায়ী ডান তীর রক্ষা প্রকল্পের কাজ শেষ হওয়ার পর জরুরী প্রয়োজনের জন্য ব্লকসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা রাখতে হবে। বর্তমানে ওই ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সাইডে থাকা পানি উন্নয়ন বোর্ড উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষ কর্তৃক গননাকৃত ব্লকগুলি সঠিক তদারকির অভাবে হরিলুট হয়ে যাচ্ছে। যেন দেখার কেউ নেই। তদারকির দায়িত্বে থাকা পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মচারী বিভিন্ন অজুহাত দিয়ে হরিলুটকে অস্বীকার জানান।
সরেজমিনে রোববার দুপুরে উপজেলার রমনা ইউনিয়নের টোন গ্রাম এলাকায় গিয়ে ব্লক হরিলুটের এ চিত্র চোখে পড়ে। আশপাশে যে যার মত ব্লক নিয়ে ঘরের দেয়াল,মেঝে বাধাইসহ বিভিন্ন কাজ করছে।এসময় দেখা যায় রফিকুল ইসলাম নামে স্থানীয় এক ব্যাক্তির ঘরের মেঝেতে ব্লক বিছিয়ে সিমেন্ট বালু দিয়ে প্লাষ্টার করছে এক রাজমিস্ত্রি।
দায়িত্বরত উপ-সহকারী প্রকৌশলী শরিফুল ইসলাম জানান, ব্লক যেই নিয়ে যাক তা প্রয়োজনের সময় উদ্ধার করে আনা হবে।
এ ব্যাপারে কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ড এর উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম বলেন, কেউ ব্লক নিয়ে গেলে তা খুজে বের করে আনা হবে। বিষয়টি আমার জানা ছিল না। খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যব্স্থা গ্রহণ করা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

নিচে আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ThemesBazar-Jowfhowo
# নতুন সকাল ডটকম, রূপসা-খুলনা থেকে প্রকাশিত একটি অনলাইন পত্রিকা। # এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া কপি রাইট বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।