শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০৪:১৬ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
কেশবপুর বুড়িহাটী জামে মসজিদে প্রথম বার্ষিক ওয়াজ মাহফিল অনুষ্ঠিত কেশবপুর জন্মনিবন্ধন বাধ্যতমূলক করতে পৌর কাউন্সিলরের ব্যাতিক্রম উদ্যোগ কেশবপুরে ইউপি নির্বাচন উপলক্ষে জাপার মতবিনিময় সভা চুলকাটিতে কৃষককের গোয়াল ঘর হতে তিনটি গরু চুরি রূপসায় আর.আর.এন সেচ্ছাসেবী সংগঠনের ৫ম বার্ষিকী উদযাপন রামপালে ৫০ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সাড়ে ৪ হাজার শিশু সুপেয় পানি থেকে বঞ্চিত রাইজিং সান হেল্থ ক্লাবের দ্বি-বার্ষিক সাধারন সভা অনুষ্ঠিত রূপসায় স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভা অনুষ্ঠিত এককেজি গাঁজা ও ১৩০ গ্রাম ইয়াবাসহ ৪ মাদক ব্যবসায়ী ও গাঁজাসেবী আটক চিলমারীতে নির্বাহী অফিসারের মদদে কাজ করছে না তথ্য কর্মকর্তারা

কুমিল্লায় মন্ডপে পবিত্র কোরআন রাখা ইকবাল গ্রেফতার

  • আপডেট : শুক্রবার, ২২ অক্টোবর, ২০২১, ৯.১২ পিএম
কুমিল্লায় মন্ডপে কোরআন রাখা ইকবাল গ্রেফতার

সকাল ডেস্ক : কুমিল্লার নগরীর নানুয়ার দিঘিরপাড়ে দর্পন সংঘের অস্থায়ী পূজামণ্ডপে পবিত্র কোরআন শরীফ রাখার অভিযোগে কক্সবাজার সমুদ্রসৈকত এলাকার সুগন্ধা পয়েন্ট থেকে  ইকবাল হোসেনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। পুলিশী জিজ্ঞাসাবাদে কোরআন রাখার কথা স্বীকার করেছেন তিনি। তবে কার নির্দেশে তিনি এ কাজটি করেছেন, তা এখনো জানাননি।

শুক্রবার (২২ অক্টোবর) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে তাকে কুমিল্লা পুলিশ লাইনে এনে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের সময় ইকবাল এ ঘটনা স্বীকার করেন বলে জানিয়েছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর এক কর্মকর্তা।

এর আগে, বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) রাত সাড়ে ১০টার দিকে কক্সবাজার সমুদ্রসৈকত এলাকার সুগন্ধা পয়েন্ট থেকে ইকবালকে আটক করে পুলিশ। শুক্রবার দুপুরে তাকে কুমিল্লা পুলিশ লাইনে এনে প্রাথমিকভাবে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

গত ১৩ অক্টোবর কুমিল্লা মহানগরীর নানুয়ার দিঘিরপাড় পূজামণ্ডপে কোরআন রাখা নিয়ে মন্দিরে হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। দেশের বিভিন্ন স্থানে নিহত হন ৭জন। এ ঘটনায় কুমিল্লার বিভিন্ন থানায় নয় মামলায় ৭৯১ জনকে আসামি করা হয়। এরমধ্যে কোতোয়ালি মডেল থানায় পাঁচটি, কুমিল্লা সদর দক্ষিণ মডেল থানায় দুটি এবং দাউদকান্দি ও দেবীদ্বার থানায় একটি করে মামলা হয়েছে। ৯১ জনের নাম উল্লেখ করে মামলায় ৭০০ অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তিকে আসামি করা হয়েছে। এ পর্যন্ত ৪৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

যেভাবে মণ্ডপে কোরআন রাখা হয়

সিসিটিভি ফুটেজে দেখা যায় ১২ অক্টোবর রাত ১০টা ৫৮মিনিটে দারোগা বাড়ি মসজিদে প্রবেশ করেন ইকবাল হোসেন। এসময় মাজারের খেদমতকারী ফয়সাল ও হুমায়ুন মসজিদে ছিলেন।
এরপর রাত ১১টার দিকে বেরিয়ে যান ইকবাল। রাত ২টা ১২ মিনিটে পুনরায় মসজিদে প্রবেশ করে দানবাক্সের উপর থেকে কোরআন শরিফ সংগ্রহ করেন তিনি। এরপর ২টা ১৪ মিনিটে সেখান থেকে বেরিয়ে যান। ২টা ২৭ মিনিটে এসে আবার কোরআন শরিফটি হাতে নেন তিনি। কিছুক্ষণ এদিক-সেদিক পায়চারী করে আবার বাইরে বেরিয়ে পড়েন।

মসজিদ থেকে বের হয়ে পূজামণ্ডপের দিকে অগ্রসর হয়ে জগন্নাথ মন্দিরের দিকে এগিয়ে যান ইকবাল। তারপর চকবাজারের স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক শাখা থেকে পূবালী ব্যাংকের দিকে অগ্রসর হন। তখন রাত ২টা ৪২ মিনিট। তারপর তিনি কিছুক্ষণ পূবালী ব্যাংক মোড়ে অবস্থান করেন। তখন ভিডিওতে আরও দুইজনকে দেখা যায়। ইকবাল পেছনের দিকে হাত রেখে তাদের সঙ্গে কথা বলেন।

পূবালী ব্যাংক মোড় থেকে এসআইবিএল ব্যাংকের চকবাজার শাখায় অগ্রসর হন ইকবাল। সেখান থেকে যান চার্টার্ড ব্যাংকের দিকে। এরপর পুনরায় জগন্নাথ মন্দির রোডে যাত্রা করেন ইকবাল। এরপর উল্টো দিকে হাঁটা ধরেন তিনি। হেঁটে জগন্নাথ মন্দির থেকে নানুয়ার দিঘির পাড়ের পূজামণ্ডপের দিকে অগ্রসর হন। তারপর দেখা যায় তার হাতে কোরআন শরিফটি নেই। এরপর হনুমানের গদা নিয়ে হাঁটতে থাকেন তিনি। দুই মিনিট পর ৯৯৯-এ কল করা ইকরামকে দেখা যায়। এবার আবার দারোগা বাড়ি মসজিদে প্রবেশ করেন ইকবাল। তখন তার হাতে গদাটিও ছিল না। এসময় মসজিদে একজনকে ঘুমাতে দেখা যায়।

নিউজটি শেয়ার করুন

নিচে আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

ThemesBazar-Jowfhowo
# নতুন সকাল ডটকম, রূপসা-খুলনা থেকে প্রকাশিত একটি অনলাইন পত্রিকা। # এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া কপি রাইট বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।