বুধবার, ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০১:৩৬ অপরাহ্ন
জরুরী ঘোষণা :
নতুন সকাল ডটকম পড়ুন ও বিজ্ঞাপন দিন। নতুন সকাল ডটকম পড়ুন ও বিজ্ঞাপন দিন নতুন সকাল ডটকম পড়ুন ও বিজ্ঞাপন দিন নতুন সকাল ডটকম পড়ুন ও বিজ্ঞাপন দিন *
সংবাদ শিরোনাম
তেরখাদায় আশ্রয়নে মধ্যরাতে কম্বল নিয়ে শীতার্তদের পাশে ইউএনও রাজশাহী জেলা পরিষদের উদ্যোগে শীর্তাত মানুষের মাঝে কম্বল বিতরণ রাজশাহী জেলা তাবলিগ ইজতেমার কাজের উদ্বোধন করলেন রাসিক মেয়র সেবা গ্রহিতাদের মনকে প্রফুল্ল করতে তেরখাদা উপজেলা পরিষদ চত্ত্বরে ফুলের বাগান! ডুমুরিয়ায় বিয়াম ল্যাবরেটরি স্কুল’র বার্ষিক ক্রীড়া অনুষ্ঠিত  কেশবপুরে সচেতন সোসাইটির উপজেলা এ্যাডভোকেসি সভা অনুষ্ঠিত ঝিনাইদহে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে কৃষি ঋণ মেলা অনুষ্ঠিত কোস্টগার্ডের অভিযানে ইয়াবাসহ এক মাদক ব্যাবসায়ী আটক ২০ কেজি মাংস ফেলে পালালো হরিন শিকারী কেশবপুরের কেন্দ্রীয় কালী মন্দিরের উন্নয়নে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

ঝিনাইদহে শিয়াল ধরতে গিয়ে মেছো বাঘ আটক

  • আপডেট : সোমবার, ২৩ জানুয়ারী, ২০২৩, ১০.৪৬ পিএম
  • ৩০ জন পড়েছেন
ঝিনাইদহে শিয়াল ধরতে গিয়ে মেছো বাঘ আটক

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি : ঝিনাইদহে শিয়াল ধরার ফাঁদে বিশাল মেছো বাঘ ধরা পড়ার ঘটনা ঘটেছে। গতরাতের কোন এক সময়ে হরিণাকুন্ডু উপজেলার রঘুনাথপুর গ্রামে বিশাল মা বাঘটি তার সন্তান বাঁচাতে এসে ঐ ফাঁদে আটকা পড়ে। পরে এলাকাবাসী মা-সন্তান উভয়কেই একটি খাঁচায় আটকে রেখেছে।অন্যদিকে এ ঘটনা জানাজানি হলে পুরো এলাকার মানুষ বাঘ ও শাবককে এক নজর দেখতে ভীড় করছে ।
এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, গত কয়েকদিন ধরে সন্ধ্যার পর থেকেই রঘুনাথপুর মাঠের পাশের জঙ্গলে আজব ডাকাডাকির শব্দ শুনি । যেহেতু এলাকার মানুষ নিয়মিত মাঠের পাশের রাস্তাগুলো ব্যবহার করে সে কারণে আমরা তৎপর থাকি যাতে বড় কোন ঘটনা না ঘটে। গত কাল দুপুরে সোলাইমান মোল্লার বাড়ির পাশের খড়কি ঘরে মেছ বাঘের বাচ্চা পাওয়া যায়। পরে কেউ যেন ওর ক্ষতি করতে না পারে সে কারণে ওকে নিরাপদে এলাকার ওনার বাড়িতে রাখা হয়।
সোলাইমান মোল্লা জানান, বাড়িতে থাকা অবস্থায় মা ছাড়া শাবক আরো বেশী মাত্রায় ডাকাডাকি করতে থাকে। পরে গতকাল রাতেই আমার শিয়াল ধরার ফাঁদ বসিয়ে ঐ জঙ্গলের পাশে রেখে আসা হয়। ঐ রাতেই বিকট গর্জনের শব্দে এলাকাবাসী একসাথে গিয়ে দেখি বিশাল একটি মেছো বাঘ আটকা পড়েছে। এখন পর্যন্ত মা ও শাবক দুজনেই সুস্থ ও নিরাপদে আছে। প্রশাসনের লোকদের জানানো হয়েছে। তারা এসে যা ভালো হয় করবে।
হরিনাকুন্ড উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শ্বাস্বতী সাহা জানান, এ ঘটনা শোনার পর সাথে সাথে রোক পাঠোনো হয়েছে। সেই সাথে ফরেষ্ট ডিপার্টমেন্টকে কবর দেওয়া হয়েছে। মা ও শাবক বর্তমানে দুজনেই নিরাপদে আছে। ফরেষ্ট ডিপার্টমেন্টের লোক আসলেই তাদের সাথে আলোচনা করে যা ভালো হয় তাই করা হবে। মেছো বাঘ সাধারণত নদীর ধারে, পাহাড়ি ছড়া এবং জলাভূমিতে বাস করে। এরা সাঁতারে পারদর্শী হওয়ায় এ ধরনের পরিবেশে সহজেই খাপ খাওয়াতে পারে। এদের গায়ে ছোপ ছোপ চিহ্ন থাকার জন্য চিতাবাঘ বলেও ভুল করা হয়। ধারণা করা হচ্ছে ওই এলাকার আশপাশের আরো মেছো বাঘের সঙ্গী থাকতে পারে। তাই মানুষকে সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

নিচে আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

ThemesBazar-Jowfhowo
# নতুন সকাল ডটকম, খুলনা রূপসা থেকে প্রকাশিত একটি অনলাইন পত্রিকা। # এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া কপি রাইট বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।