সোমবার, ২৭ মার্চ ২০২৩, ০৪:০৩ অপরাহ্ন
জরুরী ঘোষণা :
নতুন সকাল ডটকম পড়ুন ও বিজ্ঞাপন দিন। নতুন সকাল ডটকম পড়ুন ও বিজ্ঞাপন দিন নতুন সকাল ডটকম পড়ুন ও বিজ্ঞাপন দিন নতুন সকাল ডটকম পড়ুন ও বিজ্ঞাপন দিন *

তেরখাদার হাট বাজারগুলোতে রোজার আগে মাছ-মাংস ও সবজিতে আগুন!

  • আপডেট : শনিবার, ১৮ মার্চ, ২০২৩, ১০.৫৭ পিএম
  • ৬৭ জন পড়েছেন
রামপালের বাজার বেসামাল, নিম্নবিত্তদের নাভিশ্বাস

নিজস্ব প্রতিবেদক : তেরখাদার হাটবাজারগুলোতে রোজার আগেই অস্থির হয়ে উঠেছে নিত্যপন্যের দাম। গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে মাছ-মাংস ও সবজির দাম সাধারন মানুষের হাতের নাগালের বাইরে। রোজার আগেই মাছ- মাংস ও সবজিতে আগুন। শীত শেষে কেজিতে ১০/১৫ টাকা বাড়ছে সবজির দাম। এ অবস্থায় খরচের ধাক্কা সামলাতে হিমসিম খাচ্ছেন তেরখাদার উপজেলার ভোক্তারা।

যদিও এখনও কিছুটা স্থিতিশিল চাল, ডাল ও তেলের মত নিত্যপন্যের দাম। উপজেলার বেশিরভাগ মানুষের প্রতিদিনের আয়ের চেয়ে বেশি দামে কিনতে হচ্ছে মাংস। এতে নি¤œ ও মধ্যবিত্ত অনেক পরিবার প্রোটিন যোগানকারী মাংস খাদ্য তালিকা থেকে বাদ দিচ্ছেন। অনেক পরিবার শুধু বাড়িতে অতিথি এলে নিরুপায় হয়ে মাংস কেনার সাহস দেখায়। এ অবস্থা চলতে থাকলে ভবিষ্যতে এই মানুষগুলোর সাধ্যের মধ্যে আর থাকবে না মাংস।

শনিবার (১৮ মার্চ) উপজেলা সদরের কাটেংগা, জয়সেনা ও তেরখাদা বাজার ঘুরে সরেজমিন দেখা যায়, রেকর্ড দামে বিক্রি হচ্ছে মুরগি। ২/১সপ্তাহের ব্যবধানে বেড়েছে ৪০/৫০ টাকা। গত কয়েকদিন ধরে বয়লার মুরগি প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৫০ থেকে ২৭০ টাকায়, সোনালী প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩০০ থেকে ৩৫০ টাকায়, লেয়ার মুরগি বিক্রি হচ্ছে ২৮০ থেকে ২৯০ টাকায়, দেশি মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪৫০ টাকায়। গরুর মাংস ৭০০ টাকা, খাসির মাংস ১০০০ টাকা। কাঁচা বাজারে বেগুন, শসা, সিম, লাউ, আলু সহ বিভিন্ন সবজির দাম গত সপ্তাহের চেয়ে কেজিতে ৫/৭ টাকা বেড়ে গেছে।

ডিমের দামও ক্রেতাদের নাগালের বাইরে। দোকান ভেদে একই সবজি বিক্রি হচ্ছে ভিন্ন দামে। প্রতি কেজি সিম ৬০ টাকা, আলু ৩০ টাকা, দেশি পেয়াজ ৩৫ টাকা, দেশি রসুন ১২০, কাচা মরিচ ১২০ টাকা, বেগুন ৬০ টাকা, ফুলকপি ৩০ টাকা, মাছের দরদাম ওঠানামা নিয়ে ভিন্ন কথা বলছেন বিক্রেতা। বাজারে প্রতি কেজি বড় চিংড়ি ৭০০-৮০০ টাকা, পাবদা ৬০০টাকা কেজি, টেংরা ৬০০ টাকা, রুই-কাতলা ৩০০-৪০০ টাকা, পাঁচমিশালী মাছ ৫০০-৬০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

ডিম ৫০ টাকা হালি ৫০ টাকা, খোলা বাজারে সয়ামিন তেল বিক্রি হচ্ছে ১৮০ টাকা লিটার, সব মশলার দাম গত সপ্তাহের চেয়ে বেশি দরে বিক্রি হচ্ছে। কাটেংগা এলাকার দিনমজুর কচি শেখ জানান, ‘আমার পরিবারে ৬ জন সদস্য, আমি সারাদিন দিনমজুর খেটে সংসার চালাই।

সকাল থেকে সন্ধ্যা পযন্ত কাজ করে ৩০০ থেকে ৪০০ শ টাকা ইনকাম করি। পানি বাদে সবকিছু কিনতে হয়। ৩ কেজি চাল কেনার পর অল্প কিছু টাকা থাকে, সেই টাকা দিয়ে বাজার হয় না।

কোনো রকম টালমাটাল করে সংসার চালাতে হচ্ছে। নিত্যপন্যের দাম বাড়াতে সামনের দিনগুলোতে সংসার কীভাবে চলবে জানি না। বাজার করতে আসা ভ্যান চালক রমিম মোল্যা বলেন, ‘কিছুদিন আগে পোল্ট্রি মুরগির মাংশ কিনেছি ১৬০ থেকে ১৭০ টাকা। সেই মাংস এখন ২৫০ টাকা কেজি।

কোনোরকম ডাল-শাক দিয়েই চালিয়ে নিচ্ছি। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আসাদুজ্জামান বলেন, পবিত্র রমযানে কোন অসাধু ব্যবসায়ী যদি কৃত্রিম ভাবে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি করে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

আরো খবর পড়ুন>>

 

ফকিরহাট ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অফিসের উদ্বোধন

নিউজটি শেয়ার করুন

নিচে আপনার মতামত লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

ThemesBazar-Jowfhowo
# নতুন সকাল ডটকম, খুলনা রূপসা থেকে প্রকাশিত একটি অনলাইন পত্রিকা। # এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া কপি রাইট বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।